বিয়ের পাত্রী দেখার সময় মেয়েটির কোন কোন গুনাবলীর দিকে লক্ষ্য রাখা উচিত ?

যারা বিয়ে করতে যাচ্ছেন তাদের জন্য কিছু টিপসঃ
১. পাত্রী দেখার আগেই পাত্রীর সাথে কারো সম্পর্ক আছে কিনা জেনে নিবেন।
২. পরিবারের সম্মতিতে দেখা-দেখি পর্ব শেষ করে পাত্রী সাথে সরাসরি এই বিষয়ে কথা বলুন।
৩. কোন মেয়েই সম্পর্কের কথা শিকার করে না। তাই কৌশল অবলম্বন করে জানার চেষ্টা করুন।
৪. কারো সাথে গভীর সম্পর্ক থাকলে দাম্পত্য জীবনে এর প্রভাব পড়বে কিনা ভেবে দেখুন।
৫. আপনি ও কারো সাথে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছেন। পরিবারকে বলতে সাহস পাচ্ছেন না। তাই পরিবারের সম্পতিতে অন্য মেয়েকে বিয়ে করতে যাচ্ছেন। অতীতকে ভুলে পরিবারের পছন্দের মেয়েকে মেনে নিতে পারবেন কিনা একটু ভেবে দেখুন।
৬. হুট করে ঘটকের মিষ্টি কথায় কান না দিয়ে পাত্রীর পরিবারের অতীত-বর্তমান ইতিহাস জানার চেষ্টা করুন।
৭. পাত্রীর বাবার অঢেল অর্থ সম্পদ দেখে বিয়ে করতে যাবেন না। অর্থ-সম্পদের উৎস জানার চেষ্টা করুন।
৮. সুন্দরী মেয়ে দেখেই বিয়ে করার জন্য পাগল না হয়ে তার চরিত্র সুন্দর কিনা জেনে নিন।

 


৯. আপনি প্রবাসী হলে প্রবাসে কি করেন, কতদিন পর দেশে আসেন, কতদিন পরিবারকে সময় দিতে পারবেন, বিয়ের পর নিয়ে যেতে পারবেন কিনা পাত্রীকে বা পাত্রীর অভিভাবককের সাথে শেয়া করুন। বিয়ের করতে গিয়ে মিথ্যার আশ্রয় নিলে সংসার জীবনে অশান্তি দেখা দিতে পারে।
১০. বয়সের ব্যবধান যাতে বেশী না হয় সেই দিকটাও একটু খেয়াল রাখবেন। আজকাল ত্রিশোর্ধ যুবককে পনের/ষোল বছরের মেয়েকে বিয়ে করতে যায়।
১১. গ্রাম অঞ্চলে বাল্য বিবাহ এখনো টিকে আছে। অভাবের কারনে গরীব মাতা-পিতা বয়স্ক পাত্র বা বিবাহিত পুরুষের সাথে টাকার লোভে কন্যা বিয়ে থাকে। কিশোরী বধুটি সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে মৃত্যু বরণ করে থাকে। আপনি একজন শিক্ষিত ও সচেতন নাগরিক হিসেবে তাদেরকে এ কাজ থেকে বিরত থাকতে বলুন।
১৩.মেয়ের ধরম সম্পর্ক নিয়ে মিনিমান জ্ঞান আছে কিনা তা দেখুন।
১৪.ব্লাড গ্রুপটা জেনে নিবেন।
১৫.মেয়ে বিয়ের পরে চাকুরী করবে কিনা জেনে নিন।
১৬.বারবার নিজেরদের চাওয়া পাওয়া গুলো ক্লিয়ার করে নিন।
১৭.শিক্ষাগত যোগ্যতা
১৮.মেয়ের পরিবার ও মেয়ের চাওয়া পাওয়ার বিষয়টা দেখে নিন
মনে রাখবেন আপনার একটা সিদ্ধান্ত সারাজীবন বদলে দিবে। কাজেই হুটহাট করে সিদ্ধান্ত না নিয়ে ধীরে সুস্থে সময় নিয়ে সিদ্ধান্ত নিন। পপপ্রয়োজনে একাধিকবার দেখা করুন। পরিশেষে আরো অনেক বিষয় থাকে যেগুলা দেখে নিতে হয়। শুভকামনা সকল বিবাহ যোগ্য পাত্র পাত্রীর জন্য।

 

 

কাউকে না কাউকে জীবনসঙ্গিনী করে ঘরে তুলতে হবে। তো বিয়ের জন্যে পাত্রী দেখার আগে নিচের বিষয়গুলি মাথায় রাখুন। মেয়েরা অনুমান করে যে তাকে যত সুন্দর দেখাবে ,ছেলেরা তাকে তত পছন্দ করবে।অনুমানটি অনেকাংশে সত্যি, কিন্তু কিছু বৈশিষ্ট্যের কথা বলব যা সাধারণত ছেলেরা পছন্দ করে, এটি মেয়েদের ও কাজে লাগতে পারে। ১.সরলতা : ছেলেরা সাধারণত সহজ –সরল মেয়েকে পছন্দকরে । যদিও ছেলেরা খুব ফ্যাশনেবল মেয়েদের প্রতি অনেক উৎসাহী হয় বা প্রেম করলেও তা শুধুমাত্র সময় কাটানোর জন্য করে।কারণ , প্রত্যেকটি ছেলেই চায় – তার প্রেমিকা বা বউ খুবই সহজ সরল হবে । ২. নিরবতা এবং কোমলতা : ছেলেরা সাধারণত সেইসব মেয়েকে অনেক বেশি পছন্দ করে যারা অনেক নরম স্বভাবের । শুধু ছেলেরাই নয়, নরম স্বভাবের মেয়েদেরকে সবাই পছন্দ করে। ৩.ফ্রেন্ডলীনেস ও হাসিখুশি ভাব : নরম স্বভাবের মানে এই নয় যে কারো সাথেই কথা বলে না। নরম স্বভাবের মানে হলো অর্থাৎ মিশুক কিন্তু গায়ে পড়া নয়। ৪. শিক্ষা : একটা সময় ছিল যখন মেয়েদের শিক্ষার ব্যাপারটি ছেলেদের পছন্দের ক্ষেত্রে কোন ভূমিকা রাখতনা।

কিন্তু , যুগের পরিবর্তনে , শিক্ষা ছেলেদের পছন্দের ক্ষেত্রে অন্যতম নিয়ামক। ৫. স্মার্টনেস : ছেলেরা স্মার্ট মেয়েদেরকে পছন্দ করে। স্মার্ট মানে যে ভীষণ ভাবনিয়ে চলতে হবে তা নয়, স্মার্ট মানে কাজে- কর্মে স্মার্ট। ৬. সততাঃ যেসকল মেয়ে তাদের কথায় কাজে সৎএবং কথা দিয়ে কথা রাখে ছেলেরা তাদেরকে বেশি পছন্দ করে। ৭. অন্যের প্রতি যত্নবান : ছেলেরা এমন একজনকে মনেরমানুষ হিসেবে চায় যে তাকে অসুস্থতার সময়, বিপদেরসময়, টেক কেয়ার করবে। তাই যেসকল মেয়েরা অন্যের সেবা করার ব্যাপারে উৎসাহী তাদেরকে ছেলেরা অগ্রাধীকার দেয় বেশি। ৮.পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা : পরিষ্কার –পরিচ্ছন্ন মানুষকে সবাই পছন্দ করে , ছেলেরাও এর ব্যতিক্রম নয়। অপরিষ্কার অধিক সুন্দরী মেয়ের চেয়ে পরিষ্কার- পরিচ্ছন্ন কম সুন্দরি মেয়েরও দাম বেশি। ৯. চারিত্রিক বিশুদ্ধতা : উপরের সবকিছুর থেকে এটি সবচেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ণ । আপনার রুপ , গুণ ,মেধা সবই বিফলে যাবে যদি আপনার চারিত্রিক বিশুদ্ধতা রক্ষিত না থাকে।একটা ছেলের কাছে সবকিছুর থেকে একটা মেয়ের চরিত্র সবচেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ণ । সৌন্দর্য্য সৃষ্টিকর্তার দান, তাই এই দানকে ব্যবহার করে প্রেমের নামে মন নিয়ে খেলবেন না। শুভকামনা সবার জন্য।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*