বাংলাদেশের মতো ক্রিকেটপাগল কমই দেখেছেন গিলেস্পি

বাংলাদেশকে ভোলার কথা নয় জেসন গিলেস্পির। ভোলার কথা নয় সেই চট্টগ্রাম টেস্টও। তিনে নেমে খেললেন অপরাজিত ২০১ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস। ওই টেস্টের নায়কও তিনি। আশ্চর্য, অমন অসাধারণ ব্যাটিংয়ের পরই পেসার গিলেস্পির ক্যারিয়ারের পাশে বসে গেল যতিচিহ্ন! এমন সমাপ্তি নিশ্চয়ই তিনি চাননি। তবে গিলেস্পির কাছে ২০০৬ সালে বাংলাদেশ সফরটা রঙিন স্মৃতি হয়ে থাকবে সারা জীবন।

 

১১ বছর পর টেস্ট খেলতে বাংলাদেশ সফরে আসছে অস্ট্রেলিয়া। আগস্ট-সেপ্টেম্বরে মুশফিকদের বিপক্ষে দুটি টেস্ট খেলবেন স্মিথরা। ২০০৬ সালে বাংলাদেশ সফরে আসা অস্ট্রেলিয়া দলের সবাই অনেক আগে বিদায় নিয়েছেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে। বর্তমান দলের প্রত্যেকেই টেস্ট খেলতে বাংলাদেশে আসছেন প্রথমবারের মতো।

বাংলাদেশে স্মিথরা কেমন করেন, সেটি দেখতে উন্মুখ ৭১ টেস্ট, ৯৭ ওয়ানডে ও ১ টি-টোয়েন্টি খেলা গিলেস্পি, ‘সেখানে (বাংলাদেশ) তাদের খেলা দেখতে উন্মুখ। আশা করি দারুণ একটা সফর হবে।’ বাংলাদেশে খেলাটা রোমাঞ্চকর হবে, গিলেস্পি স্মিথদের উৎসাহ দিচ্ছেন এভাবেই।
বাংলাদেশে নিজের খেলার অভিজ্ঞতা বলতে গিয়ে স্থানীয় দর্শকদের ভীষণ প্রশংসা করলেন বর্তমানে অ্যাডিলেড স্ট্রাইকার্সের কোচ গিলেস্পি, ‘ক্রিকেট খেলার অসাধারণ জায়গা এটা। দর্শকেরা ভীষণ ক্রিকেটপাগল। সব সময় তারা নিজেদের দলকে সমর্থন করে। অন্য দলকেও তারা সম্মান করে। অস্ট্রেলীয় খেলোয়াড়দের তারা পছন্দ করে। সেখানে অসাধারণ সময় কাটবে ওদের (স্মিথরা)।’

অস্ট্রেলিয়া দলের ঢাকা এসে পৌঁছার কথা ১৮ আগস্ট। এই সিরিজ সামনে রেখে বাংলাদেশ দল কন্ডিশনিং ক্যাম্প শুরু করবে ১০ জুলাই। গিলেস্পি এই কথাগুলো বিশেষভাবে বললেন হয়তো এ কারণে, নিরাপত্তার শঙ্কায় একবার সফর পিছিয়ে দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। গিলেস্পির বার্তা, ক্রিকেট নিয়ে বাংলাদেশের মানুষের যে ভালোবাসা, তাতে সমর্থকেরাই হবেন অস্ট্রেলিয়া দলের আসল সুরক্ষার ভরসা।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*